আজ ২৩শে জুন, ২০১৮ ইং; ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ; বর্ষাকাল

আল্লাহ ওয়াস্তে আওয়ামীলীগের জন্য কাজ করুনঃ জাকারিয়া নাহিদ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ঢাকা মহানগর উত্তর ১০ নং ওয়ার্ড যুবলীগের নেতা জাকারিয়া নাহিদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে আওয়ামীলীগের জন্য কাজ করতে আহবান জানিয়েছেন। পাঠকের জন্য জাকারিয়া নাহিদের “অনেক কিছু বলার আছে” শিরোনামের   স্ট্যাটাস টা তুলে ধরা হল ।

অনেক কিছুই বলার আছে

অনেক কিছুই বলার আছে আমাদের তৃণমূল কর্মীদের। আমাদের তো আদর্শ একটাই জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। আমাদের নেত্রী রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। প্রিয় নেত্রী বরাবরই বলেন তৃণমূল কখনো বেইমানী করে না এবং এইটা আওয়ামীলীগের জীবনে বরাবরই পরীক্ষিত।

কিন্তু বর্তমানে কি আওয়ামীলীগের তৃণমূলের যথাযথ মূল্যায়ন করা হচ্ছে? বর্তমান আওয়ামীলীগের তৃণমূল এখন হাইব্রিডলীগ, বিএনপিলীগ, জামাতলীগ, বামলীগ, ডানলীগ, ভাইলীগ, এমপিলীগ আরো না জানা লীগের দ্বারা নিষ্পেষিত। এই দায় কার? কে নেবে এই দায়??

কয়েকদিন আগে এক পাতি নেতার সাথে দেখা হলো। তিনি একজনের জমি দখল করে বসে আছেন। জমির মালিক ভদ্রলোক যখন বলছেন আপনি আমার জমি দখল করে বসে আছেন আপনার কাগজ নিয়ে আসেন, দুইজনের কাগজ দেখে আমিন দিয়ে জমি মাপি। তো পাতি নেতা একটা ভিজিটিং কার্ড বের করে দিলেন যার একপাশে বঙ্গবন্ধুর ছবি অন্যপাশে নেত্রীর ছবি সাথে তার পদের নামটি দেওয়া। আমি আজব হয়ে গেলাম বঙ্গবন্ধু আর নেত্রী আজকে এই সাইনবোর্ডধারি পাতির জমি দখলের ঢাল। এই দায়টা কার? কোন সাহসে এই পাতি বঙ্গবন্ধু আর নেত্রীর ছবি ব্যবহার করে একজনের জমি দখল করতে গেলো? কে তারে এই পদ দিলো? এই জন্যই কি বঙ্গবন্ধু আর নেত্রী এত জেলজুলুম অত্যাচার, এত ত্যাগ স্বীকার করেছেন? আমি একজন সাধারণ তৃণমূলকর্মী, আমি কার কাছে চাইবো এর জবাব? কেউ কি আমাকে বলতে পারবেন?

 

এখনি সময় এই চাটুকার, নব্য, হাইব্রিড, পল্টিবাজদের টুটি চেপে ধরার। সম্মানিত নেতৃবৃন্দ আপনারা টাকাপয়সার কাছে নিজেদের চরিত্রকে বিক্রি করে এদেরকে পদপদবি না দিয়ে নেত্রী যেমন দুর্নীতি, ক্ষুধা, দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গড়াতে চান তা করার জন্য এক হয়ে কাজ কি করতে পারেন না?? যদি পারেন আল্লাহর ওয়াস্তে আওয়ামীলীগের জন্য কাজ করেন নিজের জন্য না। তা না হলে বিপদের দিন গুলোতে আমরা যারা তৃণমূলকর্মী আছি আমাদের কি হবে? এখন কিন্তু এইসব চাটুকার, নব্য, হাইব্রিড, পল্টিবাজদের ভিড়ে আমরা সাধারণ তৃণমূলকর্মীরা হারিয়ে যাচ্ছি । যা আওয়ামীলীগের জন্য কখনোই মঙ্গলকর হবে না আমি মনে করি।

হয়তো ছোট মুখে অনেক বড় বড় কথা বলে ফেললাম। ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন এবং তৃণমূলকর্মীবান্ধব কাজকর্ম করা শুরু করবেন। বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা এবং নেত্রীর কষ্টের কাজগুলো সম্পন্ন করতে তৃণমূল ও নেতৃত্বকে এক সুতোয় বেধে কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করি।

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু

প্রিন্ট করুন
মন্তব্য করুন