আজ ২১শে আগস্ট, ২০১৮ ইং; ৬ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ; শরৎকাল

গফরগাঁওয়ে পরীক্ষা দিতে পারেনি ৫৩ শিক্ষার্থী: থানা ঘেরাও

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে প্রবেশপত্র না পাওয়ায় এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি ৫৩ জন শিক্ষার্থী।  পরীক্ষায় অংশ নিতে না পেরে ভেঙ্গে পড়েছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।  আজ বৃহস্পতিবার সকালে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবিতে থানা ঘেরাও, বিক্ষোভ করেছে অভিবাবক ও শিক্ষার্থীরা।  বিকেলে অভিবাবক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিছ আলী বাদী হয়ে রৌহা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মারুফ মিয়া, উথুরি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইয়াসমিন সুলতানা পপিসহ ৪জনের নাম উল্লেখ করে ও আরও অঙ্গাত আরও ৪/৫ জনকে আসামী করে গফরগাঁও থানায় মামলা দায়ের করেন।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন সুত্রে জানা যায়, প্রবেশ পত্র না পাওয়ায় রৌহা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৩৭ জন এবং উথুরী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১৭ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি।  বিষয়টি আমরা গতকাল বিকেলে শুনেছি তাই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারিনাই।

 

তিনি আরও জানান, ২০১৬ সালেও পরীক্ষার আগের দিন রাতে রৌহা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মারুফ আহমেদ তার বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীদের হাতে ভূয়া প্রবেশপত্র ধরিয়ে দেন।  ২০১৭ সালে পরীক্ষার দুই ঘণ্টা আগে প্রবেশপত্র হাতে পায় একই বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীরা।  তার বিরুদ্ধে এ বছর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ারও কথা জানান তিনি।

এসএসসি পরীক্ষার্থী উথুরা গ্রামের মিম, জান্নাত, শামছুন্নাহার, স্বর্ণা, ধামাইল গ্রামের হাজেরা ও ঝুমুর বলেন, উথুরী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইয়াসমিন সুলতানা পপির মাধ্যমে রৌহা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ করি আমরা ১৭জন।  কিন্তু আমরা পরীক্ষার প্রবেশপত্র না পাওয়ায় পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি।  পরীক্ষার আগ মুহুর্ত কোনো শিক্ষককেও খুঁজে পায়নি। সবার মুঠোফোন বন্ধ রয়েছে।

এ ব্যাপারে ইউএনও স্যারের কাছে গেলে তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন বলে জানান। শিক্ষার্থীদের অভিভাবক আলী হোসেন এবং হোসেন মিয়া জানান, রৌহা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মারুফ আহমেদ উথুরী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১৭ জন শিক্ষার্থী এবং তার বিদ্যালয়ের ৩৭ জন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ফরম পূরণ বাবদ দুই হাজার ৫০০ টাকা করে নেন।

নিয়ম অনুযায়ী পরীক্ষার এক সপ্তাহ আগে প্রবেশপত্র ও রেজিস্ট্রেশন কার্ড পাওয়ার কথা থাকলেও পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষার আগ মহুর্তেও প্রবেশপত্র পায়নি।  প্রবেশপত্রের জন্য বুধবার রাতভর তারা থানা ও বিদ্যালয়ে দৌড়ঝাঁপ করে।  কিন্তু তাতে কোন লাভ হয়নি।

এ বিষয়ে উথুরী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইয়াসমিন সুলতানা পপি এবং রৌহা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মারুফ আহমেদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তাদের পাওয়া যায়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ডা. শামীম রহমান বলেন, শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ না নেওয়ার বিষয়টি দু:খজনক।  এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন