বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৯:০৫ অপরাহ্ন

নেত্রকোনায় বন্যার পানিতে ভেসে গেছে আড়াই হাজার পুকুরের মাছ

নেত্রকোনায় বন্যার পানিতে ভেসে গেছে আড়াই হাজার পুকুরের মাছ

নেত্রকোনায় ফসলি জমির পাশাপাশি আড়াই হাজার পুকুরের মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। জেলা মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, ৩৮৫ হেক্টর জমির ২২০১টি পুকুরের মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। এসব পুকুরে প্রায় ১৬৩ মেট্রিকটন মাছ উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা ছিল বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। যার বাজার মূল্য প্রায় ২ কোটি টাকার বেশি।

জেলা মৎস অফিস সূত্রে জানা গেছে, বন্যায় নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলার ৫৫৩টি, কলমাকান্দায় ৪৫০টি, বারহাট্টায় ৮২০টি, পূর্বধলায় ২০০টি আটপাড়ায় ৩০টিসহ ২২০১টি পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। এক দিকে আমনের ক্ষতি অন্যদিকে মাছ চাষের এ ক্ষতি কোনওভাবেই পুষিয়ে উঠতে পারবেন না চাষিরা।

নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের ফকিরের বাজারের ফিশারির মালিক মাহবুবুর রহমান জানান, চলতি বন্যায় প্রায় সাত লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। সরকারি সহযোগিতা না পেলে কোনও ভাবেই এ ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব নয়।

এক এলাকার কর্ণপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলী জানান, বন্যার পর সরকার সারাদেশের কৃষকদের সহযোগীতা করছে। পাশাপাশি ফিশারি মালিকদেরও সুদ মুক্ত ঋণ দিলে তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারবে। নয়তো ফিশারি মালিকরা কোনও অবস্থাতেই এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারবেন না।

পূর্বধলা উপজেলার মেঘশিমুল গ্রামের আশরাফ জানান, ক্ষতিগ্রস্ত ফিশারি মালিকদের বিনামূল্যে মাছের পোনা ছাড়ার ব্যবস্থা করে দিলে তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারবে।

নেত্রকোনা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আশরাফ উদ্দিন জানান, ইতিমধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের তালিকা তৈরি করে পোনা মাছ ও মাছের খাবারের প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সরকার এক কোটি ৩০ লাখ টাকার ৩৭০ মেট্রিকটন মাছের পোনা ক্ষতিগ্রস্ত ফিশারি মালিকদের দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে। উপজেলা কর্মকর্তাদের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের মাঝে বিতরণ করা হবে।

প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন
শেয়ার করুন:





©সর্বস্বত্ব ২০১৬-২০২০ সংরক্ষিত