শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন

শাহজাহান সাজুর তিনটি কবিতা

প্রখ্যাত কবি শাহজাহান সাজুর তিনটি কবিতা , ময়মনসিংহ বিভাগের সর্ব প্রথম বিভাগীয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল

“ময়মনসিংহ ডিভিশন ২৪ ডট কম”  পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল ।

 

 

কবিতা মানে 

কবিতা মানে সকলের তরের আমিত্ববাদ,
কবিতা মানে অত্যাচারীর বিরুদ্ধে অত্যাচারের প্রতিবাদ।
কবিতা মানে ঘুমের ভিতর জেগে থাকা,
কবিতা মানে প্রিয়তমার ঠোঁট লিপস্টিকে আঁকা।
কবিতা মানে পুঁজ হওয়া রক্তের প্রতিটি ফোঁটা,
কবিতা মানে ছিঁড়ে নেয়া ফুলের দন্ডায়মান বোটা।
কবিতা মানে খোঁপায় গুঁজে রাখা বুনো ফুল,
কবিতা মানে রাত শেষে ঘরে ফেরা পতিতার নগ্ন পা যুগল।
কবিতা মানে বানে ভেসে আসা অজস্র পিপীলিকার কুন্ডলী,
কবিতা মানে অসমাপ্ত গানের না গাওয়া কথাকলি।
কবিতা মানে চৈত্রের তাপদাহে উত্তপ্ত সকাল,
কবিতা মানে বাবুই পাখীর বাসায় মাকড়শার জাল।
কবিতা মানে শরীরকে শরীর দেয়া,
কবিতা মানে শীতের শুষ্ক-শীর্ণপ্রায় নদীতে ভাঙ্গা খেয়া।
কবিতা মানে বুঝে নেয়া না বলা কথা,
কবিতা মানে কবিতা, তোমার প্রতি আমার দূর্বলতা।

 পাপী পথ 

পাপের অন্ধকার গহিন গুহায়
আমায় ঠ্যালে দিও না,
আত্ন-প্রবঞ্চনাকর এই
শান্তিদ্রোহী-জৌলুসী পথে 
আমি যেতে চাই না।
হতে চাই না কপট – ক্লীব, কিংবা
ধূর্ত-বজ্জাত-জালিম।
এই পথ। শূর্পণখা নারীর মতো
মাংস ছিঁড়ে খায়!
এই দেখ! এরই মধ্যে আমার
হাঠু পর্যন্ত গিলেও ফেলেছে
শিকারের ন্যায়।
বিশুদ্ধ পাপহীন রক্ত আমার
হাওয়ায় মিশে যাচ্ছে কর্পূরের মতো।
আমায় টেনে ধরো,
ছুঁড়ে দিও না কিন্তু। 
দেখ! দেখ!
ওঁরা আমায় দাঁত দেখাচ্ছে, 
লাল টুকটুকে রক্ত মাখা দাঁত!
ওঁরা রক্তচোষা জোঁক!
সমস্ত রক্ত চোষে খাবে আমার
অতঃপর। মেতে উঠবে দানবীয় খেলায়।
এই। শক্ত করে ধরো, 
ছেড়ে দিও না, প্লিজ।
আমি না হয় তোমাদের পূজো করবো!
প্রেমপুষ্প দিয়ে অঞ্জলি দেবো সকাল- সন্ধ্যা।
কিংবা,,,,,
কিংবা বিশুদ্ধ উচ্চারণে
কোরআন পাঠ করে, মঙ্গল কামনা করবো
স্রষ্টার আরশে।

ছুঁয়ে দিও

দুঃখগুলো মোর মুছে দিও-
দিনের শেষে ঘরে ফেরা,যেমনি
ক্লান্ত-ঘর্মাক্ত অবুঝ সন্তানের
মুখগুলো মুছে দেয়,
মায়ের শীতল আঁচল।
সুখগুলো মোর বিলিয়ে দিও-
নিভৃত সুখ সাধনায়,যারা অনিশ্চিত 
অনিদ্র প্রহর গোনছে ডাহুকের মতো।
চুম্বনগুলো মোর এঁকে দিও-
যুদ্ধ যুদ্ধ জীবন ঘাটে 
অযত্ন-অবহেলায় বেড়ে উঠা
অনাথ দুস্থ শিশুদের ললাটে।
স্বপ্নগুলো মোর ছুঁয়ে দিও-
নিঃশব্দে চরণ ফেলে
গৃহত্যাগী রমনীর নগ্ন পা যুগল,
যেমন করে ছুঁয়েছিল
ঘাসের ডগায় জমা ভোরের শিশির।

প্রিন্ট করুন
মন্তব্য করুন
শেয়ার করুন:





©সর্বস্বত্ব ২০১৬-২০২০ সংরক্ষিত