আজ ২৩শে জুন, ২০১৮ ইং; ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ; বর্ষাকাল

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন ঘোষণা হতে আর কত অপেক্ষা ?

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Mymensingh_bappy_City_Map_-------২০১৫ সালের ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে ঢাকা বিভাগ ভেঙ্গে নতুন ময়মনসিংহ বিভাগ গঠনের ঘোষণা হওয়ার দুই বছর পরও ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন না হওয়ায় ক্ষুব্ধ এই অঞ্চলের মানুষ।

২০১৫ সালে ময়মনসিংহকে বিভাগ ঘোষনা করার পর স্বাভাবিকভাবেই শহরটির উন্নয়নে মানুষের মনে প্রত্যাশা তৈরি হয় ময়মনসিংহ হবে সিটি করেপারেশন। দুই বছর হচ্ছে এখন সে প্রত্যাশা ক্ষোভে রুপ নিতে শুরু করেছে।

ময়মনসিংহ পৌরসভাকে সিটি করপোরেশনে উন্নীত করতে আশপাশের দুইটি ইউনিয়ন পুরোপুরি ও ছয়টি ইউনিয়নের আংশিক অন্তর্ভুক্ত করে আয়তন বাড়ানো হয়েছে ৯১ বর্গ কিলোমিটারে। জনসংখ্যা ও রাজস্ব আয়সহ অন্যান্য সব যোগ্যতাও আছে চাহিদামত। তারপরও সিটি করপোরেশনের ঘোষণা না আসায় হতাশ হয়ে পড়ছেন ময়মনসিংহবাসী।

এই পরিপ্রেক্ষিতে দ্রুত নির্বাচন দিয়ে জনপ্রতিনিধি দেওয়ার জোরালো দাবি জানিয়ে পৌরবাসী বলছেন, সিটি মেয়র থাকলে ময়মনসিংহের উন্নয়ন আরো তরান্বিত হবে।  সিটি করপোরেশনের আশায় আশপাশের দুইটি ইউনিয়ন ও ছয়টি ইউনিয়নের আংশিক অন্তর্ভুক্ত এলাকাবাসীর চরম দুর্ভোগ ও অব্যবস্থাপনা দেখা দিয়েছে। রাস্তাঘাট, নাগরিক ও জন্ম-মৃত্যুর সনদ সংগ্রহ ও বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সব নড়বড়ে হয়ে পড়েছে। তাই দ্রুত নির্বাচন দিয়ে জনপ্রতিনিধি নির্ধারণ করে তার কাছে সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব বুঝিয়ে দিয়ে পরিকল্পনামাফিক কাজ করার সুযোগ তৈরি করতে হবে। তা না হলে নাগরিক দুর্ভোগ দিনে দিনে বাড়বে।

ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়, পৌরসভার আয়তন সম্প্রসারণ করে গত বছরের ২৭ আগস্ট গেজেট প্রকাশ করা হলেও প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) সচিব কমিটি থেকে বিষয়টি আরো পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আবার পাঠানো হয়েছে।

ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন থেকে আরও জানানো হয়, এই বিষয়গুলো আইনি কাঠামোর মধ্য দিয়ে অগ্রসর হচ্ছে। সম্প্রসারণের জন্যে তিনটি গেজেট নোটিফিকেশন হতে হয়। ইতোমধ্যে দুটি হয়েছে আরেকটির বিষয়ে আরো পরীক্ষা নিরীক্ষা করে আমাদের কাছে মতামত চাওয়া হয়েছে। পৌরসভার আয়তন সম্প্রসারণের বিষয়টি চুড়ান্ত হলে সামনের নিকারের বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

 

মো. মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী, সাংবাদিক । 

প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন