আজ ১৭ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং; ২রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ; হেমন্তকাল

ময়মনসিংহে কলেজ ছাত্রী উদ্ধার !

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Banskhali-Pic-22-05-17-673x525টাকার লোভে বশবর্তী হয়ে আপন খালা ও খালু এক পাথর ব্যবসায়ীর কাছে বোনের মেয়েকে বিক্রি করে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে বাঁশখালী থানায় অপহরণ মামলা দায়ের এর পর গত ২১ মে ময়মনসিংহ জেলার ফুলফুল উপজেলার এক ভাড়া বাসা থেকে কলেজ ছাত্রী (১৮) কে উদ্ধার করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার উদ্ধার হওয়া ছাত্রীর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়েছে। এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ২০০০ সংশোধিত ২০০৩ এর ৭/৩০ ধারায় রশিদ আহমদ বাদি হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়েরের পর আপন খালা শারমিন আক্তার ও তারই স্বামী মিজান উদ্দীনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলা সূত্রে জানা যায়, বৈলছড়ি ইউনিয়নের চেচুরিয়া গ্রামের কলেজছাত্রী এইচএসসি পরীক্ষা শেষে তার খালা শারমিন আক্তারের বাড়িতে আসা যাওয়ার সুবাদে ময়মনসিংহের মুসলিম খানের নজরে পড়ে।

downloadকলেজ ছাত্রীকে বিয়ে করতে চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। শেষ পর্যন্ত শারমিন আক্তার ও তার স্বামীর সহযোগিতায় গত ১৫ মে সকালে পুকুরিয়া চা বাগানে বেড়াতে নাম করে সিএনজি ট্যাক্সি করে চানপুর নামক স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। একই সময়ে রাস্তার উপর দাঁড়ানো কালো মাইক্রোবাস করে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায় খালা ও ঘটনায় সরাসরি জড়িত ময়মনসিংহের মুসলিম খান আকাশ।

কলেজ ছাত্রীর পিতা রশিদ আহমদ ৩ জনের নামে অভিযোগ দায়ের করার পর বাঁশখালী থানায় এস আই নামজুল হাসান মোবাইল ট্র্যাকিং এর মাধ্যম অপহৃত কলেজ ছাত্রী ময়মনসিংহের ফুলফুল থানার ৪নং ওয়ার্ডে অবস্থানের সংবাদ নিশ্চিত হয়। গত ২০ মে রাতভর মোবাইল ট্র্যাকিং এর মাধ্যমে কথা বলে বাসা নিশ্চিত হয়। বাঁশখালী থানা পুলিশ ফুলফুল থানার সহযোগিতায় শাহজাহানের ভাড়া বাসা থেকে ২১ মে ভোর সকাল ৮টার দিকে কলেজ ছাত্রী (১৮) কে উদ্ধার করে পুলিশ।

বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর হোসেন বলেন, আপন খালা ও খালু প্রতারণার শিকার হয়ে কলেজ ছাত্রীটিকে ভিকটিমাইজ করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে টাকার লোভে এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে। ছেলেটি পূর্বেও বিয়ে করেছে। তার ৪ সন্তান রয়েছে। দক্ষিণ জলদী দারোগা বাজারে ভাড়া বাসায় মুসলিম খান আকাশ দীর্ঘদিন থেকে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছিল।

প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন