শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন

ফুলবাড়ীয়ায় একাদশ শ্রেনীর ভর্তিতে ডিজিটাল জালিয়াতি, হতাশ শিক্ষার্থীরা

ফুলবাড়ীয়ায় একাদশ শ্রেনীর ভর্তিতে ডিজিটাল জালিয়াতি, হতাশ শিক্ষার্থীরা

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ফুলবাড়ীয়া প্রতিনিধি : চলতি বছর ফুলবাড়ীয়া উপজেলায় একাদশ শ্রেনীতে ভর্তিতে ডিজিটাল দূর্নীতি শুরু হয়েছে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সম্মতি ছাড়াই একটি চক্র ভর্তি আবেদন করছে। পছন্দমত কলেজে ভর্তি হতে না পেরে শিক্ষার্থীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। এ কাজের সাথে জড়িত রয়েছে ৩/৪ টি কলেজ।

উপজেলার ৩/৪ টি কলেজ শিক্ষার্থীদের মাধ্যমিক পরীক্ষার রেজিষ্ট্রেশন ও রোল নম্বর সংগ্রহ করে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সম্মতি ছাড়াই কলেজে ভর্তির আবেদন করে ফেলেছে উক্ত জালিয়াত চক্রটি। শিক্ষার্থীরা তাদের চাহিদামত কলেজে ভর্তির আবেদন করতে গিয়ে বিষয়টি প্রকাশ পাচ্ছে।

ভর্তি আবেদন করতে আসা শিক্ষার্থী রাসেল, মতিন, বুলবুল ও শাহ পরান জানান, তারা ফুলবাড়ীয়া মহাবিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন করতে এসে জানতে পারে তাদের ভর্তির আবেদন করা হয়েছে জনতা মহাবিদ্যালয়ে। জনতা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫.০০ পাওয়া আশরাফুন্নাহার আঁখি ভর্তির আবেদন করতে এসে জানতে পারে তার ভর্তির আবেদন করা হয়েছে শাপলা বালিকা স্কুল এন্ড কলেজে।

অভিযোগ উঠেছে হাতিলেইট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে পাশ করা একাধিক শিক্ষার্থীল রোল ও রেজিঃ নম্বর সংগ্রহ করে তাদেরকে শাপলা স্বুল এন্ড কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। পাটুলী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ ৪.৫০ নিয়ে পাশ করা ফরহাদ হোসেন ভর্তির আবেদন করতে এসে দেখতে পায় তার ভর্তির আবেদন হয়ে গেছে পলাশীহাটা স্কুল এন্ড কলেজে। বিষয়টির সাথে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কিছু অসাধু শিক্ষক ও কর্মচারী জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। অসাধুদের সাথে আঁতাত করে কলেজের শিক্ষক ও কর্মচারীরা এ কাজটি করছেন।

জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ শাহিদা পারভিনের সাথে কথা বললে তিনি সুকৌশলে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। কলেজে কর্তৃপক্ষ বলতে পারবেন।’

ফুলবাড়ীয়া মহাবিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ জানান, ‘ঘটনাটি অত্যান্ত দুঃখজনক। একজন শিক্ষার্থী তার শিক্ষা জীবনের দ্বিতীয় ধাপে এসে ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোন কলেজে লেখা পড়া করতে বাধ্য হলে শিক্ষার্থীর মানসিকতা ভেঙ্গে পড়বে।’

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নাসরিন আকতার বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে’।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার লীরা তরফদার বলেন, ‘২/৩ টি কলেজের বিরুদ্ধে এমন মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।’

চলতি বছর এস এস সি দাখিল ও ভোকেশনাল থেকে ফুলবাড়ীয়ায় ৫ হাজার ৭৩৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে কৃতকার্য হয়েছে ৪ হাজার ৯৪৪ জন।

প্রিন্ট করুন
মন্তব্য করুন
শেয়ার করুন:





©সর্বস্বত্ব ২০১৬-২০২০ সংরক্ষিত