আজ ২৩শে জুন, ২০১৮ ইং; ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ; বর্ষাকাল

ময়মনসিংহে ইমাম হামলার পর দুই ছাত্র নিখোঁজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

18386734_219501788550820_1151254290_nময়মনসিংহে ঈশ্বরগঞ্জে কাদিয়ানি মসজিদের ইমামকে কুপিয়ে আহত ঘটনার পর থেকে ঐ এলাকার দুই মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ রয়েছেন। এরা হলেন, ঈশ্বরগঞ্জ ইউনিয়নের মাঝিয়াকান্দি গ্রামের জসিম উদ্দিনের ছেলে ইসলামপুর গাফুরিয়া মাদ্রাসার আরবি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র জহিরুল ইসলাম ও  আশ্রবপুর গ্রামের শহীদুল ইসলামের ছেলে ওই মাদ্রাসার শরহে বেকায়া শ্রেণির ছাত্র ইলিয়াস।

ইসলামপুর গাফুরিয়া মাদ্রাসার মোহতামিম মাওলানা নূরুল আলম জানান, সোমবার মাদ্রাসায় পরীক্ষা দেওয়ার পর থেকেই তারা নিখোঁজ রয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে মঙ্গলবার র‌্যাব ও পুলিশ ইসলামপুর গাফুরিয়া মাদ্রাসা ও ছাত্রদের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ইসলামি বই ও খাতা উদ্ধার করেছে। সোমবার রাতে ঘটনার পরই আব্দুল আহাদ নামের এক মাদ্রাসা ছাত্রকে আটক করে গণপিটুনির পর পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। গ্রেপ্তার আহাদ পাশ্ববর্তী নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা উপজেলার কৈলাটি গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের ছেলে।

জানা গেছে, ওইদিন রাতে এশার নামাজের আজানের পর দুর্বৃত্তরা মসজিদে প্রবেশ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে  কুপিয়ে মসজিদের ইমাম মোস্তাফিজুর রহমানকে গুরুতর জখম করে।  এ সময় ইমামের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ধাওয়া করলে  দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যাওয়ার সময় আহাদকে আটক করে ধোলাই দেয়। ঈশ্বরগঞ্জ পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে সোমবার রাতেই ইমাম মোস্তাফিজ ও আহাদকে আশংকাজনক অবস্থায়  ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

 

পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ইমামকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়। আটক আহাদ জানিয়েছেন, সরিষা ইউনিয়নের খানপুর গ্রমে আইয়ুব আলী ও রজব আলী দুই ভাই তাদের বাড়িতে কাদিয়ানি মসজিদ নির্মাণ করেন। এই মসজিদে শুধুমাত্র এলাকার ছয়টি পরিবারই ওই ইমামের পেছনে নামাজ আদায় করতেন। আহত ইমাম মোস্তাফিজুর রহমানের বাড়ি দিনাজপুর জেলার কাহালু উপজেলার দোহান্দা গ্রামে। তিনি গত দুই বছর যাবত ওই মসজিদে ইমামতি করে আসছিলেন। কাদিয়ানিদের কর্মকাণ্ডে দীর্ঘদিন ধরে সাধারণ মানুষের মনে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়।

image-31962

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি বদরুল আলম খান জানান, এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন