আজ ২০শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং; ৫ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ; হেমন্তকাল

ত্রিশালে অধিক বৃষ্টিতে ব্যাপক ফসলের ক্ষতি !

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ত্রিশাল প্রতিনিধিঃঃ ত্রিশালে অতি বৃষ্টিতে রামপুর ইউনিয়নের ৫টি বিল ও একটি নদী তলিয়ে প্রায় ৫ হাজার একর বোরো ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এতে রামপুর ইউনিয়নের  ১৫ হাজার পরিবার প্রায় ১০ হাজার মেট্রিক টন ধান উৎপাদন থেকে বঞ্চিত। স্থানীয় চেয়ারম্যানের ক্ষতিগ্রস্থ্য এলাকা পরিদর্শন পানি নিস্কাশনের উদ্যোগ গ্রহন।

রামপুর ইউপি নাজমুল সরকার ক্ষতিগ্রস্থ্য এলাকা পরিদর্শন করছেন ।
রামপুর ইউপি নাজমুল সরকার ক্ষতিগ্রস্থ্য এলাকা পরিদর্শন করছেন ।

ত্রিশাল উপজেলার রামপুর ইউনিয়নে সরিজমিনে গিয়ে দেখাগেছে-গত কয়েক দিনে বয়ে যাওয়া অতি বৃষ্টিতে ইউনিয়নের চেচুয়া, গলহর বিলের প্রায় ২ হাজার একর জমি,রোকশা ও বাশকুড়ি বিলের প্রায় ৫শত একর,চিরাতল ও বিলের ১ হাজার একর,ও সুতিয়া নদীর প্রায় দেড় হাজার একর জমির বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে যায়। রামপুর ইউনিয়নের নয়াপাড়া গ্রামের অসুস্থ্য কৃষক গিয়াস উদ্দিনের স্ত্রী রাজিয়া খাতুন জানান-অতি কষ্ট করে খোরাকি ও বন্ধকী নিইয়া ১৬ কাডা জমি রুই ছিলাম বৃষ্টি আইয়া আংগর সব ধানই তল ওইয়া গেছে। ধান না পাইলে পরিবারের ৭ জন লোক লইয়া খাইতে অনেক কষ্ট ওইব। কৃষক আবুল বাশার জানান-আমার দেড় এহর জমিন তলায়য়া গেছে এইবার কি করাম বাইবা পাইতাছিনা। কৃষক আনিছুর রহমান জানান-গলহর বিলে আমার ২ পুড়া জমিন নষ্ট ওইয়া গেছে এতো টেহা খরচ কইড়া ধান লাগাইলাম ধান না পাইলে কি করাম চোককে পথ দেখতাছিনা।

 

রামপুর ইউনিয়নের বর্তমান মেম্বার শাহজাহান কবীর জানান-হঠাৎ অতি বৃষ্টিতে রুপশা ও বাশকুড়ি বিল তলিয়ে যাওয়ায় আমাদের ও ৭ একর জমি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। এতে আমরা  প্রায় ৫শত মন ধান পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবো। গতমঙ্গলবার স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল হক খান রামপুর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারদের নিয়ে অতি বৃষ্টিতে তলিয়ে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্থ্য এলাকা পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি স্থায়ীয় লোকজন নিয়ে বিল গুলো থেকে কিভাবে পানি নিষ্কাশন করা যায় তার উদ্যোগ গ্রহন করেন।

প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন