রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন

ভালুকায় প্রসূতির মৃত্যুতে হাসপাতাল সিলগালা

ভালুকা প্রতিনিধি :

TGHvaluka

ময়মনসিংহের ভালুকায় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনায় ‘তাহমিনা জেনারেল হাসপাতাল’ নামে একটি প্রাইভেট হাসপাতাল সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

এ ঘটনায় সিজার অপারেশনকারী ডাক্তারসহ ৩ জনের নামে মামলা ও একজনকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করে হাসপাতালটি সিলগালা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল আহসান তালুকদার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আফরোজা আখতার।

 

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় তাহমিনা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ভুল অপারেশনে ৪ অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধা কন্যা আছমা খাতুনের মৃত্যু হয়।

হাসপাতালে প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাতেঙ্গা গ্রামের আলী আকবর মানিকের স্ত্রী এবং মুক্তিযোদ্ধার কন্যা আছমা খাতুনের সিজার অপারেশনে কন্যা সন্তান জন্ম দেয়ার পর তিনি মারা যান। হাসপাতালের মালিক ডা. মোশারফ হোসেন, ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. কায়কোবাদ ওই অপারেশন করেন বলে জানা গেছে।

 

এ ঘটনায় নিহত আছমা খাতুনের পিতা উপজেলার ধীতপুর টুংরাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা আবু তালেব মৃধা বাদী হয়ে মডেল থানায় হাসপাতালের মালিক ডা. মোশারফ হোসেনের নাম উল্লেখ করে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা (নং-৯) দায়ের করেন।

 

এদিকে ৬ অক্টোবর বৃহস্পতিবার দুপুরে ভ্রাম্যমাণ হাসপাতালটি সিলগালা করে দেন।

 

এছাড়া অব্যবস্থাপনা, নোংরা পরিবেশ ও মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ রাখার দায়ে হাসপাতালের কর্মচারী উপজেলার স্বজনগাঁও গ্রামের আনিছ উদ্দিনের ছেলে সাইফুল ইসলামকে ৫ দিনের জেল দেন।

 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. একরাম উল্লাহ জানান, ডা. কায়কোবাদ এ্যানেস্থেসিয়ার ডাক্তার নন। শুনেছি, তিনি নিয়ম বর্হিভূতভাবে তাহমিনা জেনারেল হাসপাতালে অপারেশনের রোগীকে অজ্ঞান করেছেন। তার বিরুদ্ধ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

 

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল আহসান তালুকদার জানান, ক্লিনিক পরিচালনার জন্য যা যা দরকার তার কোনোটিই তাহমিনা জেনারেল হাসপাতালে পাওয়া যায়নি।

 

তাছাড়া হাসপাতালে চরম অব্যবস্থাপনা, নোংরা পরিবেশ ও মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ পাওয়া যাওয়ায় এক কর্মচারীকে ৫ দিনের সাজা দেয়া হয়েছে। হাসপাতালে প্রসূতি মৃত্যু ঘটনায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) আফরোজা আখতারকে প্রধান করে ১৫ দিনের মধ্যে রিপোর্ট দেয়ার জন্য তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন
মন্তব্য করুন
শেয়ার করুন:





©সর্বস্বত্ব ২০১৬-২০২০ সংরক্ষিত