বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:০৮ অপরাহ্ন

ভিসির বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে আন্দোলনে যাবার হুমকি দিলেন জাবি শিক্ষকদের একাংশ

ভিসির বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে আন্দোলনে যাবার হুমকি দিলেন জাবি শিক্ষকদের একাংশ

অভিযোগ

মোঃ সারোয়ার হোসাইন, জাবি প্রতিনিধিঃ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পরপর দু মেয়াদে উপাচার্যের দায়িত্ব পালনরত দেশের প্রথম মহিলা উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশের গ্রুপ ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’। তাঁর বিরুদ্ধে এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে কঠোর আন্দোলনেরও হুঁশিয়ারী দিয়েছেন শিক্ষকদের এ অংশটি। শিক্ষকদের এই অংশটি আজ মঙ্গলবার (১৩ নভেম্বর, ২০১৮) বিকেল ৩টায় এক সংবাদ সম্মেলন করে এমন ঘোষণা দেন।
এ সময় লিখিত বক্তব্যে গ্রুপটির সম্পাদক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ফরিদ আহমেদ বলেন,
“অনির্বাচিত উপাচার্য একের পর এক অ্যাক্ট-সংবিধি-অধ্যাদেশবিরোধী ও স্বৈরাচারী কর্মকান্ড করেই যাচ্ছেন। তিনি শিক্ষক লাঞ্ছনা, বিধি লঙ্ঘন করে নির্বাচিত সিন্ডিকেট সদস্য, ডিন ও প্রভোস্টগণকে অব্যাহতি দিয়ে তল্পিবাহক ডিন-প্রভোস্ট নিয়োগ দিয়েছেন। বিভিন্ন পদে কর্মরত শিক্ষকদের অশোভন উপায়ে অব্যাহতি প্রদান করেছেন। অবাধ নিয়োগ বাণিজ্যের মাধ্যমে শত শত অযোগ্য ব্যক্তিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে এডহকে নিয়োগ দিয়েছেন। মিথ্যে ও বানোয়াট অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত কমিটি করে সম্মানিত শিক্ষকদের হয়রানি করছেন। অকারণে শিক্ষকদের পদোন্নতির আবেদন গ্রহণ করছেননা। এছাড়া নির্বাচিত সিনেট সদস্যগণকে অপমানসহ বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকান্ড ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছেন। অন্যদিকে প্রশাসনের সৃষ্ট সেশনজ্যাম আজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে।”
তিনি আরও যুক্ত করেন,
“এমন অবস্থায় আমাদের প্রিয় প্রতিষ্ঠানটি গভীর সংকটে পড়েছে। অনির্বাচিত উপাচার্যের স্বেচ্ছাচারী ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থী-কর্মকর্তা-কর্মচারী। এই অবস্থা চলতে দেয়া যায়না। আমরা এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। পাশাপাশি এ অবস্থার বিরুদ্ধে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেওয়া হবে। এবার আন্দোলনে নামলে আমরা আর ফিরবোনা, আমাদের দাবি পূরণ করেই আমরা ফিরে যাব। আমারা যদি সত্যের পক্ষে থাকি তাহলে জয় আমাদের হবেই।”
গত ৮ নভেম্বর, ২০১৮ইং (বৃহস্পতিবার) এক সংবাদ সম্মেলন করে উপাচার্যপন্থী শিক্ষকদের গ্রুপ ‘বঙ্গবন্ধু আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’ বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোন সমস্যা নিয়ে আলোচনায় বসার আহ্বান জানান। কিন্তু আলোচনার প্রসঙ্গটি প্রত্যাখান করে ভিসি বিরোধী শিক্ষকদের গ্রুপটির সম্পাদক বলেন,
“যারা আমাদের শিক্ষকদেরকে লাঞ্ছিত করেছে, তাঁদের সাথে আমরা আলোচনায় বসতে পারিনা। তাই আমরা মনে করছি গত ১৭ এপ্রিলের ঘটনার পর তাদের সাথে আলোচনায় বসার মত পরিবেশ নেই।”
প্রিন্ট করুন
মন্তব্য করুন
শেয়ার করুন:
  • 11
    Shares





©সর্বস্বত্ব ২০১৬-২০২০ সংরক্ষিত