বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:৫৮ অপরাহ্ন

বি.আই.পি তে ডিবেট, রানার আপ জাহাঙ্গীরনগর

বি.আই.পি তে ডিবেট, রানার আপ জাহাঙ্গীরনগর

ডিবেট

মোঃ সারোয়ার হোসাইন, জাবি প্রতিনিধিঃ বিশ্ব নগর পরিকল্পনা দিবস ২০১৮ (০৮ নভেম্বর) উপলক্ষ্যে একটি ‘আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয় প্ল্যানিং বিতর্ক প্রতিযোগীতা’র আয়োজন করেছিলো বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্স (বি.আই.পি)। দেশের যেসকল বিশ্ববিদ্যালয়ে নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিষয়ের উপর স্নাতক ডিগ্রী চালু রয়েছে, সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণে বিতর্ক প্রতিযোগীতাটি সম্পন্ন হয়। এতে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এবং রানার আপ হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি)।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) পক্ষ থেকে বিতর্ক প্রতিযোগীতাটিতে প্রতিনিধিত্ব করেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের ৪৩ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুল আবেদীন হামীম (তৃতীয় বক্তা ও টিম লীডার), ৪৫ তম আবর্তনের মোহনা মেহজাবীন হক (২য় বক্তা) এবং ৪৭ তম আবর্তনের সামিয়া ইসলাম সারা (১ম বক্তা)।

ডিবেট

রানার আপ পুরষ্কার নেয়া জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন বিতার্কিক

প্রতিযোগীতার ফাইনালে উঠার পথে জাবি প্রথম রাউন্ডে হারায় কুয়েটের বিতার্কিক দলকে এবং দ্বিতীয় রাউন্ডে তাঁরা হারায় পাবিপ্রবি বিতার্কিক প্রতিনিধিদের।

বি.আই.পি-র তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত হওয়া বিতর্কে ফাইনালের বিষয় ছিলো, “সড়ক দুর্ঘটনা রোধে গাড়ী চালকের ভূমিকাই প্রধান।”  উক্ত বিতর্কে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় “পক্ষ” দল এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় “বিপক্ষ” দলের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়। পক্ষে-বিপক্ষে নানা যুক্তি তর্ক উপস্থাপন শেষে বিচারকদের রায়ে জয়ী ঘোষণা করা হয়ে বুয়েট এর বিতার্কিকদের এবং দ্বিতীয় হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিকগণ।

তবে প্রতিযোগীতায় হারলেও দর্শক মন জিতে নিয়েছেন জাবির বিতার্কিকেরা। বিতর্ক দেখতে আসা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের ৪৭ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী ফাহমিদা আফরিন সিথি রাজকাহন’কে বলেন,

“বিতর্ক প্রতিযোগীতাগুলো বরাবরই জ্ঞানের রসদ নিয়ে আসে। প্ল্যানিং এর একজন শিক্ষার্থী হিসেবে এই প্ল্যানিং ডিবেট প্রোগ্রাম থেকে অনেক কিছু শিখতে পারলাম! অনেক ভালো লেগেছে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের বক্তাগণের কথাগুলো। জয় পেলে হয়তো আরও ভালো লাগতো! কিন্তু ফলাফল যাই করেছে, আমি খুশি!”

বিতর্ক দেখতে আসা একই বিভাগের আরেক শিক্ষার্থী নাফিস আহম্মেদ রাজকাহনকে বলেন,

“অনেক আশা নিয়ে এসেছিলাম যে আমরা চ্যাম্পিয়ান হবো। কিন্তু আফসোস আমরা চ্যাম্পিয়ান হতে পারিনি। তবে আমাদের বিতার্কিকেরা অনেক ভালো কথা বলেছেন এবং আমরা তাদের পারফর্ম্যান্সে খুশি!”

বিতর্কে জাবির প্রিনিধিত্ব করা নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের ৪৭ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী সামিয়া ইসলাম সারা রাজকাহন’কে বলেন,

“বিশ্ববিদ্যালয়ে এটা আমার প্রথম বর্ষ চলছে। তাই ওয়ার্ল্ড টাউন প্ল্যানিং ডে উপলক্ষ্যে আয়োজিত এ ডিবেট আয়োজনেও এটা আমার প্রথম পদচারণা। আমরা আমাদের সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করেছি, কিন্তু খারাপ লাগছে জিততে পারিনি! তবে কথা দিচ্ছি ইনশাআল্লাহ সামনেরবার আমরা বিজয়ী হয়ে ঘরে ফিরবো এবং সকলের খুশির কারণ হবো।”

সহপাঠী এবং সিনিয়রদের থেকে ব্যাপক সহযোগীতা পেয়েছেন জানিয়ে সারা আরও বলেন,

“টিম লীডার হামীম ভাই এবং মোহনা আপু অনেক হেল্প করেছেন। আমাকে তাঁরা অনেক দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। পাশাপাশি আমার সহপাঠী অদ্রি, ফারহানসহ আমাদের ডিবেট ক্লাবের অন্য মেম্বারগণও আমাদের অনেক সহযোগীতা করেছেন এবং তাদের সহযোগীতাতেই আমরা এ পর্যন্ত আসতে পেরেছি। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন যেনো আগামীবার আমরা আরও ভালো করতে পারি!”

উল্লেখ্য, ৮ নভেম্বর, বিশ্ব নগর পরিকল্পনা দিবস-কে কেন্দ্র করে প্রতি বছরের মতো এ বছরেও বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব প্ল্যানার্স আয়োজন করেছিলো বর্ণাঢ্য র‍্যালী, সেমিনার, প্ল্যানারদের উপস্থিতিতে প্রশ্নোত্তর পর্ব, বিতর্ক প্রতিযোগীতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। এ বছর গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করা নবীন প্ল্যানারদেরকে বি.আই.পি-এর পক্ষ থেকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।

প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন
শেয়ার করুন:
  • 3
    Shares





©সর্বস্বত্ব ২০১৬-২০২০ সংরক্ষিত